Banner
কি ছিল বিধাতার মনে! – শামসুন নাহার (ছোটগল্প)

লিখেছেনঃ শামসুন নাহার, আপডেটঃ April 9, 2009, 6:00 PM, Hits: 8333

লেজে যাবার পথে দেখা যেত মস্ত গেটের দরজা। এ দরজা সব সময় আটকান থাকে। পাশেই বাঁধা থাকে এ্যলসেশিয়ান জাতীয় একটি কুকুর। দরজার পাশ দিয়ে কেউ হাঁটলেই সরবে চীৎকার করে উঠত ঘেউ-- -উ।

 

এটা ছিল নিত্য নৈমিত্তিক ঘটনা। বড়লোকের বাড়ী। বাড়ীর দারোয়ান মাঝে মাঝে কুকুরটিকে নিয়ে বের হোত। কোথায় যাওয়া হোত কে জানে। হয়ত তাকে হাওয়া খাওয়ানর উদ্দেশ্যে বের করা হোত।

 

ঘটনা ক্রমে তার আর একটি কুকুরের সঙ্গে ভাব হয়ে গেল। পথের কুকুর দেহের সে জোলুস নাই। শরীরে কিছু কিছু অংশের পশমও নাই।

 

একজন থাকে মস্ত বড় বিল্ডিং-এর গেটের পাশে শিকলে বাঁধা।

 

অন্যটি রাস্তার লোম উঠা নেড়ী কুত্তা। তবু দু’জনের এই অসম বন্ধুত্ব চলছিল।

 

একদিন দেখা গেল কঁুই কঁুই  করে গেটের বাইরে নেড়ী লেজ নাড়ছে। আর গেটের ভেতর অবস্থিত কুকুরটা পেট থেকে উগরে দিচ্ছে তার তৃপ্তির সঙ্গে খাওয়া খাদ্য। নেড়ী তাই মহানন্দে খাচ্ছে।

 

উগরানো খাবার খাওয়ার পর নেড়ী লেজ নাড়তে লাগল। গেটের ভিতরের কুকুরও লেজ নাড়তে লাগল। আর ভিতর থেকে মুখ বাড়িয়ে নেড়ীর মুখ গলা যেটুকু সে তার গেটের প্রতিন্ধকতা থেকে পারল নেড়ীকে আদর করে চেটে চেটে ভরিয়ে দিল। হয়ত বলল আবার আসিস এই সময় আমার খাবারের আংশ তোকে এভাবেই দিব।

 

এরপর থেকে এই সময় নেড়ীকে দেখা যেত গেটের বাহিরে আর বাড়ীর যত্নপুষ্ট কুকুরটিকে গেটের ভিতরে।

 

একই নিয়মে প্রতিদিন তারা মিলিত হোত।

 

একে অনেক কাছাকাছি এসে সম্ভাষণ জানাত ঘরের ভিতরের কুকুরটি ঘেউউ। মৃদু স্বরে নেড়ী কঁুই কঁুই করে তার বন্ধুর আদরের প্রতিদান দিত।

 

পোষা কুকুরটা নিয়মিতভাবে খাবার উগরে দিত নেড়ীর সামনে। নেড়ী তা মহানন্দে ভোজন করত।

 

এইভাবে দিনগুলি কেটে গেলে নেড়ীর জীবন স্বচ্চন্দে চলত। কিন্তু তা হোল না। যত্ন পালিত কুকুরের মালিকের একদিন ব্যাপারটা চোখে পড়ে গেল। তিনি অগ্নিশর্মা হয়ে কুকুর রক্ষাকারী চাকরটিকে ডেকে সাবধান করে দিলেন। এ রকম যেন আর না হয়।

 

তিনি তাঁর কুকুরের জন্য যে খাদ্য সরবরাহের ব্যবস্থা করছেন তা পথের কুকুরের জন্য নয়।

 

নেড়ী কয়েক দিন সময়ে অসময়ে যাওয়া আসা করল। বাঁধা কুকুরটি তার দিকে চেয়ে ঘেউ-উ করল। শিকলে টান দিয়ে চেষ্টা করল গেটের দিকে যাবার। লোহার শিকল বড় শক্ত!

 

দুইটি কুকুর দুইজনের দিকে তাকাল। এদের হৃদয়ের ভাষা কেউ বুঝে নাই। ক্ষুধার্ত শীর্ণ দেহখানি নিয়ে ফিরে গেল নেড়ী।

 

তবু যেতে চায় না। ক্ষুধা আর আশা এই নিয়ে কয়েক দিন ঘুরে ফিরে এল।

 

তারপর একদিন দেখা গেল একটি নেড়ী কুকুর ডাস্ট্‌বিনের পাশে মরে পড়ে আছে।

 

অনলাইনঃ ১০ এপ্রিল, ২০০৯

সাম্প্রতিক পোষ্টসমূহ